দুর্নীতিবাজদের রক্তচক্ষু উপড়ে ফেলা হবে

প্রকাশ: July 11, 2015
Annisul Huq

দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আনিসুল হকের বক্তব্য নিয়ে ১১ জুলাই, ২০১৫ তারিখের যুগান্তর পত্রিকায় এই খবরটি প্রকাশিত হয়। খবরটি আমরা ঢাকার পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হল-

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আনিসুল হক বলেছেন, ডিএনসিসির কাছে রাজধানীবাসীর অনেক প্রত্যাশা। আমরা সেসব প্রত্যাশা পূরণে দিনরাত কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের এ স্বপ্নযাত্রায় কেউ বাধা হতে পারবে না। ডিএনসিসির দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন মেয়র।

শুক্রবার রাজধানীর মহাখালীর রাওয়া কনভেনশন সেন্টারে ডিএনসিসি আয়োজিত সংসদ সদস্য ও কাউন্সিলরদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভা ও ইফতার মাহফিলে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। আনিসুল হক বলেন, আমি নিজে কোনো ধরনের দুর্নীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত নই। সেহেতু দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে আমার কোনো সমস্যা হবে না।

তাছাড়া নগর উন্নয়নে বাধা হয় এমন দুর্নীতিবাজদের রক্তচক্ষু উপড়ে ফেলা হবে। কারোর সঙ্গে আপস করা হবে না। ডিএনসিসিতে মেয়র হিসেবে যোগদানের পর কাজে অবহেলার কারণে দুই প্রকৌশলীকে বরখাস্ত এবং দুই নেতাকে পদাবনতি করে অন্যত্র বদলি করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, রাজধানীর বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ, পানি নিষ্কাশন এবং জলাবদ্ধতা নিরসনে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি আমরা। কিন্তু সহযোগী সংস্থাগুলোর কাছ থেকে প্রত্যাশা অনুযায়ী সহযোগিতা পাচ্ছি না। রাজধানীর একটি এলাকার পানি সরবরাহ সমস্যার সমাধানে ঢাকা ওয়াসার সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও কোনো সমাধান মেলেনি।

তিনি বলেন, ডিএনসিসিতে আমরা ৫ বছরের জন্য জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হয়েছি। প্রায় ২ মাস আমরা দায়িত্ব পালন করেছি। এরই মধ্যে ৩৬টি ওয়ার্ডের ৩১টি পরিদর্শন শেষ করেছি। ঈদের পর বাকি ওয়ার্ডগুলো পরিদর্শন করব। এসব ওয়ার্ডের অলিগলি ঘুরে সমস্যা চিহ্নিত করা হচ্ছে।

বিলবোর্ড ঢাকার পরিবেশ নষ্ট করছে এমন মন্তব্য করে ডিএনসিসি মেয়র বলেন, বিলবোর্ড ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আমরা মতবিনিময় করেছি। অবৈধ বিলবোর্ড সরিয়ে নিতে তাদের অনুরোধ করেছি। তারা আমাদের আশ্বস্ত করেছেন এক মাসের মধ্যে অবৈধ বিলবোর্ডগুলো সরিয়ে ফেলবেন। এ ছাড়া রাজধানীর আবর্জনা পরিষ্কারের প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে বলে জানান আনিসুল হক।

সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সাবেক মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, সাবেক মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক কর্নেল (অব.) মো. ফারুক খান, স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এবং স্থপতি মোবাশ্বের চৌধুরী প্রমুখ।

সূত্র: যুগান্তর

You must be logged in to post a comment Login

মন্তব্য করুন