স্কুলে নিপীড়ন | তথ্য জানান

প্রকাশ: May 18, 2015
23210_1

৫ মে মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি স্কুল ও কলেজের এক শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ ওঠে। এতে অভিভাবকসহ সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। প্রথম শ্রেণিতে পড়ুয়া ছাত্রীকে মুখ চেপে ধরে নিয়ে গিয়েছিল মোহাম্মদপুরের প্রিপারেটরি গার্লস স্কুলের এক পাষণ্ড কর্মচারী। এই নিয়ে ক্ষোভ-অসন্তোষ চলছে ৫ মের পর থেকেই। অভিযোগ উঠেছে আরও দুটি ছাত্রীকে নিপীড়ন করার বিষয়েও। এর আগে পঞ্চম ও চতুর্থ শ্রেণির আরও দুটি শিশু এ রকম ঘটনার শিকার হয়েছে। কিন্তু তদন্তে চলছে গড়িমসি। অভিভাবকদের চাপে তদন্ত কমিটি গঠন করা হলো বটে, কিন্তু তার প্রতিবেদন আর জমা পড়ে না।

সাম্প্রতিক সময়ের অনেক যৌন নিপীড়নের ঘটনায় যা ঘটেনি, মোহাম্মদপুরে সেটাই ঘটেছে। ভুক্তভোগীরা প্রকাশ্যে বেরিয়ে এসে প্রতিরোধের দায়িত্ব নিজ হাতে নিলেন। এই মায়েদের, এই মেয়েদের অভিবাদন।

পরিবার ও সন্তানের জন্য মানুষ কী না করে। সেই সন্তানটি যখন এমন অনিরাপদ দশায় পড়ে, তখন পরিবার রুখে দাঁড়াবেই। যখন প্রতিষ্ঠান ব্যর্থ হয়, তখন সমাজ দাঁড়িয়ে পড়ে।

ইতোমধ্যেই এক শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানির পর অভিভাবকদের বিক্ষোভের মুখে বিদ্যালয় থেকে সব পুরুষ কর্মচারী সরিয়ে নিয়েছে মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি স্কুল ও কলেজ কর্তৃপক্ষ। ওই ঘটনা নিয়ে মন্তব্য করার জন্য সমালোচনার মুখে থাকা উপাধ্যক্ষ জিনাতুন নেছাকেও অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

ঘটনাকে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা আমাদের রীতিমত ক্ষুব্ধ ও বিস্মিত করেছে। মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরী স্কুলে ক্লাস ওয়ান এবং ক্লাস ফাইভের দুই শিশুকে যৌন নির্যাতন ঘটনায় স্কুলের প্রিন্সিপালসহ কতিপয় শিক্ষক নির্যাতনের ঘটনাটিতে ধামাচাপা দেয়ার অপচেষ্টা নির্যাতনকে উস্কে দিবে। আমরা ঢাকা এই যৌন নির্যাতনে জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও বিচারের আওতায় আনবার দাবি জানাচ্ছে।

ঢাকা উত্তরের নবনির্বাচিত মেয়রের কর্ম পরিকল্পনায় অগ্রাধিকার পাচ্ছে নারীর জন্য নিরাপদ ঢাকা। নারীর জন্য নিরাপদ নগরী ও মর্যাদাকর সংস্কৃতি গড়ে তুলতে তিনি বদ্ধপরিকর। কাছে এই ঘটনা নিয়ে কোন তথ্য থাকলে আমাদের জানান। আপনার তথ্য, মতামত, পরামর্শ আমরা তাঁর কাছে পৌঁছে দেব।

You must be logged in to post a comment Login

মন্তব্য করুন