রাজকীয় রয়েল হোটেল

প্রকাশ: May 28, 2015
royal resturent

পুরান ঢাকায় নাম করা যে কয়েকটি হোটেল আছে তার মধ্যে লালবাগের রয়েল হোটেল অন্যতম। গুণগত মান শতভাগ ঠিক রেখে খাবার তৈরিতে রয়েল হোটেলের জুড়ি নেই পুরান ঢাকায়।তাই এখানে সবসময়ই লেগে থাকে ক্রেতার ভীড়।

লালবাগ কেল্লার কাছেই ৪৪, হরনাথ ঘোষ রোডে গেলেই দেখা যায়, রয়েল হোটেলে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভীড়। পরিচালক আব্দুল মালেক জানিয়েছেন, এই হোটেলটি প্রতিষ্ঠা করেন হাজী মোঃ জিয়াউদ্দিন। তিনি আরও জানান, পুরান ঢাকার মানুষজন ছাড়াও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও সংলগ্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষার্থীরাও এখানে নিয়মিত খেতে আসেন। দোতলায় বন্ধু-বান্ধব নিয়ে দল বেঁধে অথবা পরিবার-পরিজন নিয়ে আরামে খাওয়ার কাজ সেরে নেওয়া যায়। জানা গিয়েছে, পুরাতন ঢাকার মধ্যে একমাত্র এই রয়েল হোটেলেই ঘি দিয়ে বিরিয়ানি রান্না করা হয়। বিএসটিআইয়ের শর্ত শতভাগ পূর্ণ করে স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশে রান্নার কাজটি করা হয়। বাণিজ্য নয় ভোক্তার সেবাকে লক্ষ্য আর ব্যবসার চালিকাশক্তি বলে মনে করেন রয়েল হোটেলের কর্তৃপক্ষ।

royal restaurant.

royal restaurant..

এখানকার চিকেন টিক্কা, কাবাব, গ্লাসি, কালা ভুনা অথবা স্পেশাল নানসহ আরো অনেক পদের খাবার প্রতিদিন ভোজন রসিকদের তৃপ্ত করছে। বিকেল হলেই দেখা যায় বিশাল সেলফ চিকেন টিক্কাতে পূর্ণ। দুপুরে রয়েছে নানা পদের ভর্তা, সবজি আর মাংসের নানা পদ। রয়েলের খাসির বিরিয়ানি, কাচ্চি আর মোরগ পোলাও এই তিনটি আইটেম সব সময় পাওয়া যায়। লাবাং আর পেস্তার শরবত খুবই জনপ্রিয়। ঢাকার যে কোনো জায়গাতে যে লাবাং বানানো হয় তা প্রথম শুরু করেছিলেন রয়েল রেস্তরার কর্ণধার হাজী মোঃ জিয়াউদ্দিন। এছাড়াও এখানকার পেস্তার শরবত ও বোরহানিও যে কারো মন ভোলাবে।

You must be logged in to post a comment Login

মন্তব্য করুন