নারী ধূমপায়ীদের স্বাস্থ্যঝুঁকি বেশি

প্রকাশ: May 31, 2015
Untitled-1

ধূমপানে নারীর মৃত্যুর আশংকা অনেক বেড়েছে। অল্প বয়সে ধূমপানে অভ্যস্ত হওয়া এবং আগের তুলনায় অনেক বেশি সিগারেট টানার কারণেই ফুসফুসের ক্যান্সার নাটকীয়ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশ্বে ধূমপানের কারণে যত পুরুষ মারা যায় নারীদের সংখ্যাও প্রায় তার কাছাকাছি পৌঁছেছে বলে নতুন এ সমীক্ষায় দেখা গেছে। এ সমীক্ষার ফলাফল নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অব মেডিসিনে প্রকাশিত হয়েছে। এ সমীক্ষার জন্য আমেরিকায় ২০ লাখের বেশি নারীর নানা তথ্য খতিয়ে দেখা হয়েছে। ১৯৬০-এর দশকের তুলনায় ধূমপায়ী মহিলাদের মৃত্যুর আশংকা অনেক বেড়ে গেছে বলে নতুন এক গবেষণা সমীক্ষায় দেখা গেছে।

১৯৫০ এবং ১৯৬০ এর দশকে প্রথম প্রজন্মের নারী ধূমপায়ীদের সৃষ্টি হয়। প্রাথমিক বছরগুলোতে ধূমপান করেন না এমন ব্যক্তিদের তুলনায় নারী ধূমপায়ীদের ফুসফুসের ক্যান্সারে মৃত্যুর আশংকা ছিল।

কিন্তু ২০০০ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত নারীদের চিকিতসা সংক্রান্ত তথ্য-উপাত্ত ঘেটে দেখা যায়, ধূমপান করেন না এমন বন্ধু-বান্ধবদের তুলনায় ধূমপায়ী নারীদের মৃত্যুর আশংকা ২৫ গুণ বেশি।

ধূমপায়ী পুরুষদের ক্ষেত্রে ক্যান্সার আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতাও একই রকম। পুরুষরা অবশ্য ১৯৮০’র দশকেই এ পর্যায়ে পৌঁছে গিয়েছিল।

গত বছর প্রকাশিত গবেষণায় দেখা গেছে, যে সব নারী জীবনেও ধূমপান করেননি তাদের চেয়ে ধূমপায়ী নারীদের ১০ বছর আগেই মারা যাওয়ার আশংকা রয়েছে।

অবশ্য যে সব নারী ৩০ বছর বয়সেই সিগারেট টানা একেবারে ছেড়ে দিয়েছেন তারা ধূমপানের কুফল এবং তামাক জনিত অসুখ-বিসুখের হাত থেকে পুরোপুরি রক্ষা পেয়েছেন। অন্যদিকে যারা ৪০ বছরে পৌঁছে সিগারেট খাওয়া বাদ দিয়েছেন তারা তুলনামূলকভাবে এক বছর আগেই মারা যান।

এ সমীক্ষার নেতৃত্বদানকারী গবেষক ডা. মাইকেল থুন বলেন, ধূমপানে মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকি আছে- এ বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পরও নারীদের ক্ষেত্রে ধূমপানের ঝুঁকি গত কয়েক দশক ধরে ক্রমাগত বেড়েছে। অথচ নারীরা সাধারণভাবে কম নিকোটিন যুক্ত সিগারেটই পান করেন।

অর্থাত কথিত কম নিকোটিন যুক্ত সিগারেট নারীদের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমাতে পারেনি। এ জাতীয় সিগারেট পানে পুরুষদের মধ্যে ফুসফুসের মারাত্মক রোগ হয়ত বাড়িয়েছে। ধূমপায়ীরা যে মাত্রার নিকোটিন গ্রহণে অভ্যস্ত তা পাওয়ার জন্য এসব কম নিকোটিনের ধোঁয়া ফুসফুসে অনেক গভীরভাবে টেনে নিয়েছেন।

এ সমীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক স্যার রিচার্ড পেটো বলেন, নারীরা যদি পুরুষের মত সিগারেট টানেন তবে এটাই স্বাভাবিক যে তারা পুরুষদের মতই মারা যাবেন।

You must be logged in to post a comment Login

মন্তব্য করুন